সম্পূর্ণ খাদ্যশস্য সয়াবিন। আমিষ ও ভোজ্যতেল উৎপাদনে এটি অতি প্রয়োজনীয়। আজকের আয়োজন এর নানা দিক নিয়েআমিষ ও ভোজ্য তেল উৎপাদনে সয়াবিন গুরুত্বপূর্ণ। অনেক দেশে এটি প্রধান ফসল হলেও বাংলাদেশে এখনও জনপ্রিয় হয়ে ওঠেনি। বাংলাদেশে সয়াবিন তেল বিদেশ থেকে আমদানি করে বাজারজাত করা হচ্ছে। এতে দ্বিগুণ মূল্যে দিয়ে সয়াবিনের চাহিদা পূরণ করতে হয়। সুতরাং স্বল্প মূল্যে সরবরাহের লক্ষ্যে বাংলাদেশে সয়াবিন চাষ করা প্রয়োজন। তাই চাষিরা এর সঠিক চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে চাষ করে এ ফসল বৃদ্ধি করতে পারে।যেসব জায়গায় চাষ হয় বাংলাদেশে যদিও সব জেলায় এর চাষ শুরু হয়নি, কিন্তু সব জায়গায় এটি চাষ করা সম্ভব। কেননা সয়াবিন বছরের সব সময় চাষ করা যায়।

তবে রবি মৌসুমে ফলন বেশি হয়। নিচু জমিতেও এর চাষ করা সম্ভব। বর্তমানে বাংলাদেশের উপকূলীয় জেলাগুলোয় সয়াবিনের আবাদ বেশি হচ্ছে। জেলাগুলো হচ্ছে চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, বরিশাল, ভোলা ও পটুয়াখালী। এছাড়া ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল জেলায় সয়াবিনের চাষ হয়ে আসছে।সয়াবিন মূলত অল্প সময়ের ফসল। মাত্র তিন মাসের মধ্যে ফসল সংগ্রহ করা যায়। এ ফসল চাষের ফলে জমির উর্বরতা বৃদ্ধি পায়। এর রাখে। এর ফলে পরবর্তী ফসলে অর্ধেক পরিমাণে প্রয়োজন হয়। এর কম ও চাষাবাদ পদ্ধতিও সহজ। তাই চাষিরা বাজারক্ষেত্রে আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারে।স্থান নির্বাচন সেচ ও পানি বের হয়ে যাওয়ার সুবিধা আছে এমন সমতল জমি সয়াবিন চাষের জন্য ভালো। বাড়ির আশেপাশে অথবা গাছের ছায়া পড়ে এমন জায়গা সয়াবিন চাষের জন্য বেছে নিতে পারেন। পরিবেশ ও মাটি সয়াবিন  মাটিতে চাষের জন্য উপযোগী। জমি অবশ্যই উঁচু হতে হবে ও খরিফ বা বর্ষা মৌসুমে পানি বের হওয়ার সুবিধা রাখতে হবে। রবি মৌসুমে মাঝারি নিচু জমিতেও চাষ করা যায়।

জমি তৈরি জমিতে প্রথমে আড়াআড়ি চাষ করে নিয়ে মই দিয়ে মাটি ভালোভাবে করে ফেলতে হবে। এরপর আগাছা বাছাই ওদিয়ে পরিষ্কার করে কৃষি অধিদফতরের পরামর্শ অনুযায়ী জমিতে ভালোভাবে মিশিয়ে দিতে হবে। সার মেশানো হয়ে গেলে বীজ বপন করতে হবে।বপনের সময় ও পদ্ধতিবাংলাদেশে শীত (রবি মৌসুম) ও বর্ষা (খরিফ মৌসুম) এ দুই মৌসুমেই সয়াবিন বপন করা যায়। পৌষ মাসে অর্থাৎ ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারির ভেতরে বপন করা ভালো। বর্ষা মৌসুমে শ্রাবণ থেকে ভাদ্র মাস, অর্থাৎ জুলাই থেকে আগস্টের ভেতরেও বপন করা যায়। সয়াবিনের বীজ সারি অনুযায়ী বপন করা ভালো। তবে কলাই বা মুগ ডালের মতো বপন করা যায়। সারিতে বপন করলে সারি থেকে সারির দূরত্ব রবি মৌসুমে ১২ ও খরিফ মৌসুমে ১৬ রাখতে হবে। গাছ থেকে গাছের দূরত্ব দুই থেকে দুই দশমিক পাঁচ রাখতে হবে।